ইক্বামতের সময় কখন দাঁড়াবেন

ইক্বামতের সময় কখন দাঁড়াবেন

ইক্বামতের সময় কখন দাঁড়াবেন

ইক্বামতের সময় কখন দাঁড়াবেন


✴️ইকামতের সময় অনেক মানুষকে দেখা যায় একামত শুরু হওয়ার আগেই নামাজের জন্য দাঁড়িয়ে যায় এটা সঠিক নয়। সঠিক পদ্ধতি হলো, একামত পাঠকারী ব্যক্তি দাঁড়িয়ে একামত দিবেন এবং বাকি সমস্ত ব্যক্তিরা বসে থাকবেন। একামত পাঠকারী যখন ‘হাইয়া আলাস স্বালাহ অথবা হাইয়া আলাল ফালাহ’ পর্যন্ত পৌঁছাবে তখন সমস্ত ব্যক্তিরা দাঁড়াবেন। তেমনি যে ব্যক্তি ইকামতের সময় মসজিদে প্রবেশ করবে সে দাড়িয়ে একামত সমাপ্ত হওয়ার অপেক্ষা করবেনা বরং সে বসে পড়বে এবং যখন ‘হাইয়া আলাস স্বালাহ’ পাঠ করা হবে তখন দাঁড়াবে। এ সম্পর্কে কিছু হাদিস ওয়েমান গণের মন্তব্য নিম্নে প্রদত্ত হলো-
عَنْ عَبْدِ اللهِ بْنِ أَبِي قَتَادَةَ عَنْ أَبِيهِ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللهِ صلى الله عليه وسلم إِذَا أُقِيمَتْ الصَّلاَةُ فَلاَ تَقُومُوا حَتَّى تَرَوْنِي.
অর্থাৎ! হযরত আবূ ক্বাতাদাহ্ রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ নামাজের ইক্বামাত হলে আমাকে না দেখা পর্যন্ত তোমরা দাঁড়াবে না।
{{ সহীহ বুখারী হাদিস নং-637 }}
عَنْ أَبِي قَتَادَةَ قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: ((إِذَا أُقِيمَتِ الصَّلاَةُ فَلاَ تَقُومُوا حَتَّى تَرَوْنِي))
অর্থাৎ! হযরত আবু কাতাদা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ নামাজের ইকামাত দেয়া হলেও আমাকে না দেখা পর্যন্ত তোমরা দাঁড়াবে না।
{{ সহীহ মুসলিম হাদিস নং-1395 }}
{{ মুসনাদ আহমাদ হাদিস নং-22613 }}
✴️ মুসলিম শরীফের প্রখ্যাত ভাষ্যকার ইমাম নববী রাহমাতুল্লাহি আলাইহি মুসলিম শরীফের হাদীসের ব্যাখ্যায় এরশাদ করেন-
ﻭاﺧﺘﻠﻒ اﻟﻌﻠﻤﺎء ﻣﻦ اﻟﺴﻠﻒ ﻓﻤﻦ ﺑﻌﺪﻫﻢ ﻣﺘﻰ ﻳﻘﻮﻡ اﻟﻨﺎﺱ ﻟﻠﺺﻻﺓ ﻭﻣﺘﻰ ﻳﻜﺒﺮ اﻹﻣﺎﻡ ﻓﻤﺬﻫﺐ اﻟﺸﺎﻓﻌﻲ ﺭﺣﻤﻪ اﻟﻠﻪ ﺗﻌﺎﻟﻰ ﻭﻃﺎﺋﻔﺔ ﺃﻧﻪ ﻳﺴﺘﺤﺐ ﺃﻥ ﻻ ﻳﻘﻮﻡ ﺃﺣﺪ ﺣﺘﻰ ﻳﻔﺮﻍ اﻟﻤﺆﺫﻥ ﻣﻦ اﻹﻗﺎﻣﺔ ﻭﻧﻘﻞ اﻟﻘﺎﺿﻲ ﻋﻴﺎﺽ ﻋﻦ ﻣﺎﻟﻚ ﺭﺣﻤﻪ اﻟﻠﻪ ﺗﻌﺎﻟﻰ ﻭﻋﺎﻣﺔ اﻟﻌﻠﻤﺎء ﺃﻧﻪ ﻳﺴﺘﺤﺐ ﺃﻥ ﻳﻘﻮﻣﻮا ﺇﺫا ﺃﺧﺬ اﻟﻤﺆﺫﻥ ﻓﻲ اﻹﻗﺎﻣﺔ ﻭﻛﺎﻥ ﺃﻧﺲ ﺭﺣﻤﻪ اﻟﻠﻪ ﺗﻌﺎﻟﻰ ﻳﻘﻮﻡ ﺇﺫا ﻗﺎﻝ اﻟﻤﺆﺫﻥ ﻗﺪ ﻗﺎﻣﺖ اﻟﺼﻼﺓ ﻭﺑﻪ ﻗﺎﻝ ﺃﺣﻤﺪ ﺭﺣﻤﻪ اﻟﻠﻪ ﺗﻌﺎﻟﻰ ﻭﻗﺎﻝ ﺃﺑﻮ ﺣﻨﻴﻔﺔ ﺭﺿﻲ اﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻭاﻟﻜﻮﻓﻴﻮﻥ ﻳﻘﻮﻣﻮﻥ ﻓﻲ اﻟﺼﻒ ﺇﺫا ﻗﺎﻝ ﺣﻲ ﻋﻠﻰ اﻟﺼﻼﺓ ﻓﺈﺫا ﻗﺎﻝ ﻗﺪ ﻗﺎﻣﺖ اﻟﺼﻼﺓ ﻛﺒﺮ اﻹﻣﺎﻡ
অর্থাৎ! ইকামতের সময় মুসল্লিগণ কখন দাঁড়াবেন এই প্রসঙ্গে ইমামগনের মধ্যে মতানৈক্য পরিলক্ষিত হয়। ইমাম শাফেয়ী রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু ও একদল ইমামগণের মতে মুআয্যিন যখন একামত সমাপ্ত করবে তখন দারানো মুস্তাহাব। কাজী য়িয়াজ রাহমাতুল্লাহি আলাইহি বর্ণনা করেন, ইমাম মালিক এবং সাধারণ আলিমগণ বলেছেন, মুআজ্জিন যখন একামত শুরু করবে তখন মুক্তাদীদের জন্য দাঁড়ানো মুস্তাহাব। এবং হযরত আনাস বিন মালিক রাহমাতুল্লাহি আলাইহি মুআজ্জিনের “কদ্ কামাতিস স্বালাহ” পাঠ করার সময় দাঁড়াতেন। আর এটাই মত পোষণ করেছেন ইমাম আহমদ বিন হাম্বাল রাহমাতুল্লাহি আলাইহি। ইমাম আবু হানিফা রাদিয়াল্লাহু আনহু ও কুফাবাসী ইমামগণ মুআজ্জিনের “হাইয়া আলাস্ব স্বালাহ” পাঠ করার সময় দাঁড়াতেন এবং “কাদ্ কামাতিস্ব স্বালাহ” পাঠ করার সময় নামাজ শুরু করতেন।
{{ শারহে মুসলিম লি নাবাবী খন্ড-5 পৃষ্ঠা-103 }}
💫وما توفيقي الا بالله العلي العظيم و الصلاة والسلام على حبيبه الكريم صلى الله عليه وسلم💫
✍️
⁦✍️⁩⁦মুফতী আমজাদ হোসাইন সিমনানী প্রেসিডেন্ট সুন্নি মিশন✍️⁩ পরিচালক:- সিমনানী রিসার্চ সেন্টার✍️
🌍 থানা- কুশমন্ডি, জেলা- দক্ষিন দিনাজপুর, রাজ্য- পশ্চিমবঙ্গ, ভারত🌍
নোট:- কোন মসআলা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হলে আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাতে পারেন আমাদের
SIMNANI RESEARCH CENTRE & HOLY-WAY TEAM

সমাজের পাশে দ্বীনের খেদমতের জন্য সব সময় আছে।*আমাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার জন্য-এই লিংকে ক্লিক করুন www.keyofislam.com

আমাদের Real Sunni TvHoly way ইউটিউব চ্যানেল গুলি কে  SUBSCRIBE করুন

আমাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

Leave a Reply

This Post Has One Comment

  1. Abdullah

    Jazaakallah khaira