নবী কারীম সাল্লাল্লাহু সাল্লাম কি নিজের জন্মদিন পালন করেছেন?

নবী কারীম সাল্লাল্লাহু সাল্লাম কি নিজের জন্মদিন পালন করেছেন?

নবী কারীম সাল্লাল্লাহু সাল্লাম কি নিজের জন্মদিন পালন করেছেন?

عَنْ أَبِي قَتَادَةَ الأَنْصَارِيِّ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ سُئِلَ عَنْ صَوْمِ الاِثْنَيْنِ فَقَالَ: ((فِيهِ وُلِدْتُ وَفِيهِ أُنْزِلَ عَلَيَّ)).
অর্থাৎ! হযরত আবু কাতাদা আনসারী রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত। নবী কারীম সাল্লাল্লাহু ওয়া সাল্লাম কে সোমবারের রোজা প্রসঙ্গে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি উত্তরে বললেন, আমি সোমবার জন্মগ্রহণ করেছি এবং সোমবার দিনে আমার প্রতি প্রথম ওহী নাযিল হয়েছে।
{{ সহীহ মুসলিম হাদিস নং-«2807»}}
✴️উপরোক্ত হাদিস থেকে স্পষ্টতই প্রতীয়মান হয় যে, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু তায়ালা আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রতি সপ্তাহের সোমবার দিন রোজা রাখতেন এবং সাহাবায়ে কেরাম যখন তাঁকে সেই রোজা প্রসঙ্গে জিজ্ঞেস করেন, তখন তিনি উত্তরে বললেন, আমি সেইদিন এজন্য রোজা রাখি কারণ সেই দিন আমি জন্মগ্রহণ করেছি। সুতরাং এখান থেকে স্পষ্টতই প্রমাণিত হয় যে, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজের জন্মদিন কে পালন করতেন রোজার মাধ্যমে।
জন্মদিন পালন করা যদি অবৈধ ও নাজায়েজ হত তাহলে নবী কারীম সাল্লাল্লাহু সাল্লাম কোনদিন নিজের জন্মদিন পালন করতেন না।
✴️উল্লেখ্য যে, কোন জিনিসকে পালন করার জন্য নাজায়েজ কর্ম হওয়াটা জরুরী নয় ভালো এবং নেকির কাজের মাধ্যমেও কোন জিনিস কে পালন করা যায়। যেমন-
ঈদুল ফিতর দিনকে আমরা পালন করি নামাজের মাধ্যমে, ঈদুল আযহাকে পালন করি নামাজ ও কোরবানির মাধ্যমে, রমজান মাসকে পালন করি রোজা ও তারাবির মাধ্যমে, মহরমের আশুরা পালন করি রোজা অথবা নামাজের মাধ্যমে, লাইলাতুল ক্বাদরকে পালন করি আল্লাহর এবাদত ও নফল নামাজের মাধ্যমে, হজ পালন করি তাওয়াফ ও সায়ী ইত্যাদির মাধ্যমে। সুতরাং কোন জিনিস কে পালন করা অথবা সেলিব্রেট করার জন্য নাজায়েজ ও অবৈধ কাজ হওয়া জরুরী নয় বরং জায়েজ ও নেক কাজের মাধ্যমেও পালন করা যায়।
ﻋﻦ ﻋﺒﺪ اﻟﻠﻪ ﺑﻦ ﻣﺤﺮﺭ، ﻋﻦ ﻗﺘﺎﺩﺓ، ﻋﻦ ﺃﻧﺲ ﻗﺎﻝ: «ﻋﻖ ﺭﺳﻮﻝ اﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ اﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻋﻦ ﻧﻔﺴﻪ ﺑﻌﺪ ﻣﺎ ﺑﻌﺚ ﺑﺎﻟﻨﺒﻮﺓ»
অর্থাৎ! হযরত আনাস বিন মালিক রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নবুওয়াত প্রকাশের পর নিজের জন্য আকিকা করলেন।
{{মুসান্নাফ আব্দুর রাজ্জাক খন্ড-4 পৃষ্ঠা-339 হাদিস নং-7960 }}
ﻋﻖ ﺭﺳﻮﻝ اﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ اﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻋﻦ ﻧﻔﺴﻪ ﺑﻌﺪ ﻣﺎ ﺟﺎءﺗﻪ اﻟﻨﺒﻮﺓ ﺃﻧﺲ ﺑﻦ ﻣﺎﻟﻚ
অর্থাৎ! হযরত আনাস বিন মালিক রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু হতে বর্ণিত তিনি বলেন নবী কারীম সাল্লাল্লাহু সাল্লাম নাবুওয়াত প্রকাশের পর নিজের তরফ থেকে আকিকা করলেন।
{{ শারফুল মুস্তাফা খন্ড-6 পৃষ্ঠ-240 হাদিস নং- 1859 }}
ﻭﻋﻦ ﺃﻧﺲ ﺃﻥ اﻟﻨﺒﻲ – ﺻﻠﻰ اﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – «ﻋﻖ ﻋﻦ ﻧﻔﺴﻪ ﺑﻌﺪﻣﺎ ﺑﻌﺚ ﻧﺒﻴﺎ».
ﺭﻭاﻩ اﻟﺒﺰاﺭ، ﻭاﻟﻄﺒﺮاﻧﻲ ﻓﻲ اﻷﻭﺳﻂ، ﻭﺭﺟﺎﻝ اﻟﻄﺒﺮاﻧﻲ ﺭﺟﺎﻝ اﻟﺼﺤﻴﺢ ﺧﻼ اﻟﻬﻴﺜﻢ ﺑﻦ ﺟﻤﻴﻞ، ﻭﻫﻮ ﺛﻘﺔ
অর্থাৎ!! হযরত আনাস রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু হতে বর্ণিত। নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম বেয়সাতের পর নিজের তরফ থেকে আকিকা করেন।
{{ মাজমাউজ জাওয়ায়েদ খন্ড-4 পৃষ্ঠা-59 হাদিস নং-6203 }}
( ইমাম হাইসামী রহমতুল্লাহি আলাইহির উপরোক্ত হাদীসটি উল্লেখ করার পর বলেন- ইমাম বাজজার ও তাবরানী রাদিয়াল্লাহু আনহুমা হাদিস উক্ত হাদিস কে বর্ণনা করেছেন আর হাদীসের রাবী গণের মধ্যে হাইসাম বিন জামীল ব্যতীত তাবরানী শরীফ এর সমস্ত রাবীগণ বিশ্বস্ত ও সেক্বা। তবে তিনি সমালোচিত হলেও বহুজনের নিকট তিনিও বিশ্বস্ত)
✴️ প্রিয় মুসলিম সমাজ উপরোল্লেখিত তিনটি হাদিস শরীফ থেকে স্পষ্টত প্রমাণিত যে, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রায় 40 বছর পর নিজের তরফ থেকে আকীকা করে মানুষকে খাইয়েছেন।
উপরোক্ত এই তিন হাদিস এর মর্মার্থ জানার ও বুঝার জন্য আমাদেরকে জানতে হবে যে, আকিকা করা সন্তান জন্মের কয়দিন পর সুন্নত এবং আকিকা কেন করা হয়?
আকিকা করা কোন দিন সুন্নত এ প্রসঙ্গে মুহাদ্দিসগনের যদিও মতভেদ রয়েছে তবে তন্মধ্যে সর্বোত্তম মত হল 7, 14 অথবা 21 দিনে আকিকা করা সুন্নত। দ্বিতীয়তঃ আকিকা করা হয় বাচ্চা জন্মের খুশি পালন করার উদ্দেশ্যে মানুষকে পশু জবাই করে খাওয়ানোর মাধ্যমে। অতএব প্রমাণিত হলো যে, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু সাল্লাম এই হাদিসের মধ্যে নিজের নাম রাখার জন্য আকিকা করেননি বরং নিজের জন্মের খুশি পালন করার উদ্দেশ্যে পশু জবাই করে সাহাবাদের কে খাইয়েছেন।

💞وما توفيقي الا بالله العلي العظيم و الصلاة والسلام على حبيبه الكريم صلى الله عليه و على اله و اصحابه و سلم💞
✍️মুফতী আমজাদ হুসাইন সিমনানী, পরিচালক:- সিমনানী রিসার্চ সেন্টার✍️
🌍থানা- কুশমন্ডি, জেলা- দক্ষিণ দিনাজপুর, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত 🌍
নোট:- কোন মসআলা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হলে আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাতে পারেন আমাদের
SIMNANI RESEARCH CENTRE & HOLY-WAY TEAM

সমাজের পাশে দ্বীনের খেদমতের জন্য সব সময় আছে।*আমাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার জন্য-এই লিংকে ক্লিক করুন www.keyofislam.com

আমাদের Real Sunni TvHoly way ইউটিউব চ্যানেল গুলি কে  SUBSCRIBE করুন

আমাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

Leave a Reply

This Post Has 8 Comments

  1. Abdullah

    جزاك الله خيرا

  2. Kaneez

    ওহাবী সম্প্রদায়ের জন্য উপযুক্ত দলীল।

  3. Amjad husain simnani

    Article ti ke beshi beshi share korun.

    1. Bashar

      Ai rokom post dite thakun

  4. Bashar

    Khub valo

  5. Noor Alam qadri

    Nice post

  6. Noor Alam qadri

    Go ahead bro

  7. Mufti tamjit

    Jazaakallahu khaira