নামাজে সূরা ফাতিহা সমাপ্ত করার পর আমীন পাঠ করার ফজিলত

নামাজে সূরা ফাতিহা সমাপ্ত করার পর আমীন পাঠ করার ফজিলত

নামাজে সূরা ফাতিহা সমাপ্ত করার পর আমীন পাঠ করার ফজিলত

✴️সম্মানিত মুসলিম সমাজ! যে সমস্ত ব্যক্তি একাকী নামায আদায় করবেন তারা প্রত্যেক রাকাতে সূরা ফাতিহা পাঠের পর ‘আমীন’ বলবেন। যদি কোন ব্যক্তি ইমামের পিছনে নামাজ আদায় করে অর্থাৎ জামাত সহকারে নামাজ আদায় করে তাহলে, ইমাম যখন সূরা ফাতিহা পাঠ করা সমাপ্ত করবে তখন ইমাম ও মুক্তাদী উভয় ‘আমীন’ বলবেন। এই আমীন পাঠ করার হাদিস শরীফে বহু ফজিলত ও নেকি এসেছে, তন্মধ্যে কিছু হাদীস নিম্নে প্রদত্ত হলো-
عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: ((إِذَا قَالَ أَحَدُكُمْ آمِينَ. وَقَالَتِ الْمَلاَئِكَةُ فِي السَّمَاءِ آمِينَ. فَوَافَقَتْ إِحْدَاهُمَا الأُخْرَى، غُفِرَ لَهُ مَا تَقَدَّمَ مِنْ ذَنْبِهِ)).
অর্থাৎ-আবূ হুরাইরাহ্ রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ যখন তোমাদের কেউ (নামাজে) ‘আমীন’ বলে, আর আসমানে ফেরেশতাগণ ‘আমীন’ বলেন এবং উভয়ের ‘আমীন’ একই সময় হলে, তার পূর্ববর্তী সমস্ত পাপ ক্ষমা করে দেয়া হয়।
{{ সহীহ বুখারী হাদিস নং-781,, মুআত্তা মালিক হাদিস নং-196,, মুসনাদ আহমাদ হাদিস নং-9924,, সহীহ মুসলিম হাদিস নং-945 }}
عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم قَالَ ‏”‏ إِذَا قَالَ الإِمَامُ ‏{‏غَيْرِ الْمَغْضُوبِ عَلَيْهِمْ وَلاَ الضَّالِّينَ‏}‏ فَقُولُوا آمِينَ‏.‏ فَإِنَّهُ مَنْ وَافَقَ قَوْلُهُ قَوْلَ الْمَلاَئِكَةِ غُفِرَ لَهُ مَا تَقَدَّمَ مِنْ ذَنْبِهِ ‏”‏‏
অর্থাৎ!. আবু হুরাইরাহ্ রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ ইমাম غَيْرِ الْمَغْضُوبِ عَلَيْهِمْ وَلاَ الضَّالِّينَ পড়লে তোমরা ‘আমীন’ বলো। কেননা, যার এ (আমীন) বলা ফেরেশতাগণের (আমীন) বলার ন্যায় হয়, তার পূর্বের সব গুনাহ মাফ করে দেয়া হয়।
{{ সহীহ বুখারী হাদিস নং-782,, মুআত্তা মালিক হাদিস নং-195,, }}
عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم قَالَ ‏”‏ إِذَا أَمَّنَ الإِمَامُ فَأَمِّنُوا فَإِنَّهُ مَنْ وَافَقَ تَأْمِينُهُ تَأْمِينَ الْمَلاَئِكَةِ غُفِرَ لَهُ مَا تَقَدَّمَ مِنْ ذَنْبِهِ ‏”‏‏
অর্থাৎ! . আবূ হুরাইরাহ্ রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ ইমাম যখন ‘আমীন’ বলেন, তখন তোমরাও ‘আমীন’ বলো। কেননা, যার ‘আমীন’ (বলা) ও মালাইকাহর ‘আমীন’ (বলা) এক হয়, তার পূর্বের সব গুনাহ মা‘ফ করে দেয়া হয়।
{{ সহীহ বুখারী হাদিস নং-780,, সুনানে তিরমিযী হাদিস নং-251,, মুআত্তা মালিক হাদিস নং-194,, সহীহ মুসলিম হাদিস নং-942 }}
❤️وما توفيقي الا بالله العلي العظيم و الصلاة والسلام على حبيبه الكريم صلى الله عليه وسلم ❤️
⁦✍️⁩⁦মুফতী আমজাদ হোসাইন সিমনানী প্রেসিডেন্ট সুন্নি মিশন✍️⁩ পরিচালক:- সিমনানী রিসার্চ সেন্টার✍️
🌍 থানা- কুশমন্ডি, জেলা- দক্ষিন দিনাজপুর, রাজ্য- পশ্চিমবঙ্গ, ভারত🌍
নোট:- কোন মসআলা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হলে আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাতে পারেন আমাদের
SIMNANI RESEARCH CENTRE & HOLY-WAY TEAM

সমাজের পাশে দ্বীনের খেদমতের জন্য সব সময় আছে।*আমাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার জন্য-এই লিংকে ক্লিক করুন www.keyofislam.com

আমাদের Real Sunni TvHoly way ইউটিউব চ্যানেল গুলি কে  SUBSCRIBE করুন

আমাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

Leave a Reply