নেককার ও পুণ্যময়ী স্ত্রীর ফজিলত

নেককার ও পুণ্যময়ী স্ত্রীর ফজিলত

নেককার ও পুণ্যময়ী স্ত্রীর ফজিলত

             💞بسم الله الرحمن الرحيم💞
⁦☀️⁩نحمده تبارك وتعالى و نصلي و نسلم على رسوله الاعلى أما بعد-⁦☀️⁩
সম্মানিত পাঠক! আমি আগেই উল্লেখ করেছি, মেয়েদেরকে বিবাহ করা হয় চারটি বিষয় বিবেচনা করে।তন্মধ্যে দ্বীনদার, পরহেচগার ও ধর্মপরায়ণা নারিকেই আল্লাহ তাআলা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রাধান্য ও অগ্রাধিকার দিতে বলেছেন। কারণ এই বিশ্বের মধ্যে আল্লাহ তা’আলা আপনার জন্য যাহা কিছু সম্পদ সৃষ্টি করেছেন তন্মধ্যে সবথেকে উত্তম সম্পদ হলো আপনার নেককার স্ত্রী। যার দিকে তাকালে তার হাস্যোজ্জ্বল চেহারা ও প্রফুল্লতা আপনাকে আনন্দিত করে।, আপনি কোন আদেশ করলে তা সে পূরণ করতে দ্বিধা করবে না, এবং আপনি তাকে শপথ করে কিছু বললে সে তা পূর্ণ করে, আর আখেরাতের কাজে সে আপনার সহায়তাকারী হবে। নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নেককার স্ত্রী প্রসঙ্গে কয়েকটি বাণী আপনাদের সম্মুখে তুলে ধরছি, যাহাতে আপনারা হাদিস মোতাবেক আমল করতে সচেষ্ট হন। 👇
عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عَمْرٍو أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: ((إِنَّمَا الدُّنْيَا مَتَاعٌ وَلَيْسَ مِنْ مَتَاعِ الدُّنْيَا شَيْءٌ أَفْضَلَ مِنَ الْمَرْأَةِ الصَّالِحَةِ)).
✳️অর্থাৎ!! ‘আবদুল্লাহ্ ইবনু ‘আমর রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেনঃ গোটা দুনিয়াই হলো সম্পদ। আর দুনিয়ার মধ্যে পুণ্যবতী স্ত্রীলোকের চেয়ে অধিক উত্তম কোন সম্পদ নাই।
{{ সুনানে ইবনে মাজাহ হাদিস নং 1928,,
{{ মুসনাদুল বায্যার হাদিস নং-2441 }}
{{ আত-তারগীব মুনযিরী হাদিস নং-2943 }}🖋️
عنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عَمْرِو بْنِ الْعَاصِ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ إِنَّ الدُّنْيَا كُلَّهَا مَتَاعٌ وَخَيْرُ مَتَاعِ الدُّنْيَا الْمَرْأَةُ الصَّالِحَةُ
✳️অর্থাৎ! আবদুল্লাহ ইবন আমর ইবন আস রাদিয়াল্লাহু আনহু সূত্রে রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ সমগ্ৰ পৃথিবী মানুষের ভোগ্য-বস্তু, আর পৃথিবীর ভোগ্য বস্তুসমূহের মধ্যে সর্বোত্তম হলো পুণ্যবতী স্ত্রী।
{{ সুনানে নাসাঈ হাদিস নং-3245 }}
{{ মুসনাদ আহমাদ হাদিস নং-6567 }}
{{ সহীহ ইবনে হিব্বান হাদিস নং-4031 }}
{{ সুনানে কুবরা বাইহাকী হাদিস নং-13468 }}
{{ মিশকাত শরীফ হাদিস নং-3083}}
{{ কানযুল উম্মাল হাদিস নং-44451}}
((হাদীসটি সহীহ সনদে বর্ণিত হয়েছে))🖋️
عَنْ أَبِي أُمَامَةَ عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَنَّهُ كَانَ يَقُولُ: ((مَا اسْتَفَادَ الْمُؤْمِنُ بَعْدَ تَقْوَى اللَّهِ خَيْرًا لَهُ مِنْ زَوْجَةٍ صَالِحَةٍ إِنْ أَمَرَهَا أَطَاعَتْهُ وَإِنْ نَظَرَ إِلَيْهَا سَرَّتْهُ وَإِنْ أَقْسَمَ عَلَيْهَا أَبَرَّتْهُ وَإِنْ غَابَ عَنْهَا نَصَحَتْهُ فِي نَفْسِهَا وَمَالِهِ)).
✳️অর্থাৎ!! আবূ উমামাহ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলতেনঃ কোন মু’মিন ব্যক্তি আল্লাহ্ভীতির পর উত্তম যা লাভ করে তা হলো পুণ্যময়ী স্ত্রী। স্বামী তাকে কোন নির্দেশ দিলে সে তা পালন করে; সে তার দিকে তাকালে (তার হাস্যাজ্জ্বল চেহারা ও প্রফুল্লতা) তাকে আনন্দিত করে এবং সে তাকে শপথ করে কিছু বললে সে তা পূর্ণ করে। আর স্বামীর অনুপস্থিতিতে সে তার সম্ভ্রম ও সম্পদের হেফাযত করে।
{{ সুনানে ইবনে মাজাহ হাদিস নং 1930 }}
{{ মু’জামি কাবীর তাবরানী হাদিস নং-7881 }}
{{ আত-তারগীব মুনযিরী হাদিস নং-2945 }}
((হাদীসটি উত্তম সনদে বর্ণিত হয়েছে))🖋️
عَنْ ثَوْبَانَ قَالَ لَمَّا نَزَلَ فِي الْفِضَّةِ وَالذَّهَبِ مَا نَزَلَ قَالُوا فَأَيَّ الْمَالِ نَتَّخِذُ قَالَ عُمَرُ فَأَنَا أَعْلَمُ لَكُمْ ذَلِكَ فَأَوْضَعَ عَلَى بَعِيرِهِ فَأَدْرَكَ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم وَأَنَا فِي أَثَرِهِ فَقَالَ يَا رَسُولَ اللهِ أَيَّ الْمَالِ نَتَّخِذُ فَقَالَ لِيَتَّخِذْ أَحَدُكُمْ قَلْبًا شَاكِرًا وَلِسَانًا ذَاكِرًا وَزَوْجَةً مُؤْمِنَةً تُعِينُ أَحَدَكُمْ عَلَى أَمْرِ الْآخِرَةِ
✳️অর্থাৎ! সাওবান রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, সোনা-রূপা (মূল্যবান সম্পদ) পুঞ্জীভূত করে রাখার সমালোচনায় কুরআনের আয়াত নাযিল হলে সাহাবায়ে কিরাম বলেন, তাহলে আমরা কোন্ সম্পদ ধরে রাখবো? ‘উমার রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, আমি তা জেনে তোমাদের বলে দিবো। অতঃপর তিনি তার উটকে দ্রুত হাঁকিয়ে রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম -এর সাক্ষাত পেয়ে গেলেন। আমিও তার পিছনে পিছনে গেলাম। তিনি বলেন, হে আল্লাহর রসূল! আমরা কোন্ সম্পদ সঞ্চয় করবো? নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেনঃ তোমাদের প্রত্যেকেই যেন অর্জন করে কৃতজ্ঞ অন্তর, যিকিরকারী জিহবা এবং আখেরাতের কাজে তাকে সহায়তাকারী ঈমানদার স্ত্রী।
{{ সুনান ইবনে মাজাহ হাদিস নং 1929,,
{{ সুনানে তিরমিজি হাদিস নং-3094 }}
{{ আত-তারগীব লি-কিয়ামিস সুন্নাহ হাদিস নং- 1391}}
{{ আত-তারগীব মুনযিরী হাদিস নং-2947}}
{{ মিশকাত শরীফ হাদিস নং-3095 }}
{{ মু’জামে আওসাত হাদিস নং-2370 }}
((হাদীসটি সহীহ সনদে বর্ণিত হয়েছে))🖋️
ﻭﻋﻦ ﺃﻧﺲ ﺭﺿﻲ اﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﺃﻥ ﺭﺳﻮﻝ اﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ اﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻗﺎﻝ ﻣﻦ ﺭﺯﻗﻪ اﻟﻠﻪ اﻣﺮﺃﺓ ﺻﺎﻟﺤﺔ ﻓﻘﺪ ﺃﻋﺎﻧﻪ ﻋﻠﻰ ﺷﻄﺮ ﺩﻳﻨﻪ ﻓﻠﻴﺘﻖ اﻟﻠﻪ ﻓﻲ اﻟﺸﻄﺮ اﻟﺒﺎﻗﻲ
ﺭﻭاﻩ اﻟﻄﺒﺮاﻧﻲ ﻓﻲ اﻷﻭﺳﻂ ﻭاﻟﺤﺎﻛﻢ ﻭﻣﻦ ﻃﺮﻳﻘﻪ ﻟﻠﺒﻴﻬﻘﻲ ﻭﻗﺎﻝ اﻟﺤﺎﻛﻢ ﺻﺤﻴﺢ اﻹﺳﻨﺎﺩ
✳️অর্থাৎ হযরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত। নিশ্চয়ই নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যাকে আল্লাহ তা’য়ালা নেককার স্ত্রী প্রদান করেছেন তাকে ধর্মের অর্ধেক বিষয়ের উপর সাহায্য করেছেন। অতএব তার উচিত বাকি অর্ধেক বিষয়ে আল্লাহ তাআলা কে ভয় করা।।
{{ আত-তারগীব মুনযিরী হাদিস নং-2950}}
{{ মু’জামে আওসাদ হাদিস নং-972 }}
{{ মুস্তাদরাক হাকিম হাদিস নং-2681 }}
{{ শুয়াবুল ঈমান হাদিস নং-5101 }}
{{ মাজমাউজ জাওয়ায়েদ হাদিস নং-7434 }}
{{ ইবাতুল মেহরা আস্কালিনী হাদিস নং-1306}}
{{ মাকাসিদুল হাসানা 1/638 }}
{{কানযুল উম্মাল হাদিস নং-44420 }}
((ইমাম হাইস্বামী রাহমাতুল্লাহি আলাইহি বলেন, হাদীসটি ঈমাম তাবরানী তাঁর ‘আওসাত’ গ্রন্থে এবং ইমাম হাকিম ‘মুস্তাদরাক’ গ্রন্থে বায়হাকী সূত্রে বর্ণনা করেছেন। ইমম হাকিম বলেন, হাদীসটি সহীহ সনদে বর্ণিত হয়েছে))🖋️
ﻭﻋﻦ ﺃﺑﻲ ﻫﺮﻳﺮﺓ ﻗﺎﻝ: «ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ اﻟﻠﻪ – ﺻﻠﻰ اﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ -: ” ﻣﺎ ﺃﻓﺎﺩ ﻋﺒﺪ ﺑﻌﺪ اﻹﺳﻼﻡ ﺧﻴﺮا ﻟﻪ ﻣﻦ ﺯﻭﺟﺔ ﻣﺆﻣﻨﺔ ﺇﺫا ﻧﻈﺮ ﺇﻟﻴﻬﺎ ﺳﺮﺗﻪ، ﻭﺇﺫا ﻏﺎﺏ ﻋﻨﻬﺎ ﺣﻔﻈﺘﻪ ﻓﻲ ﻧﻔﺴﻬﺎ ﻭﻣﺎﻟﻪ» “.
ﺭﻭاﻩ اﻟﻄﺒﺮاﻧﻲ ﻓﻲ اﻷﻭﺳﻂ، ﻭﻓﻴﻪ ﺟﺎﺑﺮ اﻟﺠﻌﻔﻲ، ﻭﻫﻮ ﺿﻌﻴﻒ، ﻭﻗﺪ ﻭﺛﻖ، ﻭﺑﻘﻴﺔ ﺭﺟﺎﻟﻪ ﺛﻘﺎﺕ.
✳️অর্থাৎ হযরত আবু হরাইরা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত তিনি বলেন নবী করীম সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, কোন ব্যক্তি ইসলাম কবুল করার পর উত্তম যা লাভ করে তা হলো পুণ্যময়ী স্ত্রী। সে তার দিকে তাকালে (তার হাস্যাজ্জ্বল চেহারা ও প্রফুল্লতা) তাকে আনন্দিত করে এবং স্বামীর অনুপস্থিতিতে সে তার সম্ভ্রম ও সম্পদের হেফাযত করে।
{{ মাজমাউজ জাওয়ায়েদ হাদিস নং-7435 }}
{{ কানযুল উম্মাল হাদিস নং-44477 }}
((হাদীসটি হাসান সনদে বর্ণিত হয়েছে))🖋️
ﻭﻋﻦ اﺑﻦ ﻋﺒﺎﺱ ﺭﺿﻲ اﻟﻠﻪ ﻋﻨﻬﻤﺎ ﺃﻥ اﻟﻨﺒﻲ ﺻﻠﻰ اﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻗﺎﻝ ﺃﺭﺑﻊ ﻣﻦ ﺃﻋﻄﻴﻬﻦ ﻓﻘﺪ ﺃﻋﻄﻲ ﺧﻴﺮ اﻟﺪﻧﻴﺎ ﻭاﻵﺧﺮﺓ ﻗﻠﺒﺎ ﺷﺎﻛﺮا ﻭﻟﺴﺎﻧﺎ ﺫاﻛﺮا ﻭﺑﺪﻧﺎ ﻋﻠﻰ اﻟﺒﻼء ﺻﺎﺑﺮا ﻭﺯﻭﺟﺔ ﻻ ﺗﺒﻐﻴﻪ ﺣﻮﺑﺎ ﻓﻲ ﻧﻔﺴﻬﺎ ﻭﻣﺎﻟﻪ
ﺭﻭاﻩ اﻟﻄﺒﺮاﻧﻲ ﻓﻲ اﻟﻜﺒﻴﺮ ﻭاﻷﻭﺳﻂ ﻭﺇﺳﻨﺎﺩ ﺃﺣﺪﻫﻤﺎ ﺟﻴﺪ
✳️অর্থাৎ হযরত ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু হতে বর্নিত। নবী কারীম সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, চারটি জিনিস যে ব্যক্তিকে প্রদান করা হয়েছে তাকে দুনিয়া এবং আখেরাতের সমস্ত ভালাই প্রদান করা হয়েছে যথা- কৃতজ্ঞ অন্তর, যিকিরকারী জিহবা, মুসিবতে সবুরকারী শরীর ও নেককার স্ত্রী। যে নিজের স্বামীর জান ও সম্পদে খেয়ানত করে না।
{{ আত তারগীব মুনযিরী হাদিস নং-2946 }}
((হাদীসটি উত্তম সনদে বর্ণিত হয়েছে))🖋️
🤲 আল্লাহ তায়ালা সমস্ত মুসলিম যুবক ভাইদেরকে নেককার ও আখিরাতের কাজে সাহায্যকারী স্ত্রী প্রদান করুন,! আমীন! বি-জাহি সাইয়েদিল মুরসালীন আলাইহিস্ব স্বালাতু ওয়াত তাসলীম।
নেককার ও পুণ্যময়ী স্ত্রীর ফজিলত
💘وما توفيقي الا بالله العلي العظيم و صلى الله تعالي على نبيه الكريم💘
✍️মুফতী আমজাদ হুসাইন সিমনানী প্রেসিডেন্ট সুন্নি মিশন✍️
🌍 থানা: কুশমন্ডি, জেলা: দক্ষিন দিনাজপুর, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত🌍

Leave a Reply

This Post Has 2 Comments

  1. Amjad husain

    جزاك الله خيرا

  2. Kaneez

    খুব সুন্দর ও প্রয়োজনীয় একটি লেখনি দেওয়ার জন্য আপনাদেরকে ধন্যবাদ আমরা আশা করব আপনাদের কাছে এরকম আরো বেশি বেশি লেখনীর।