মাজার শরীফে টাকা দেওয়া নেকি না গুনাহ

মাজার শরীফে টাকা দেওয়া নেকি না গুনাহ

মাজার শরীফে টাকা দেওয়া নেকি না গুনাহ

মাজার শরীফে টাকা দেওয়া নেকি না গুনাহ ?

               💞بسم الله الرحمن الرحيم💞
     نحمده و نصلي على رسوله الكريم اما بعد
قال الله تبار ك و تعالى فى القران المجيد
“وَ تَعَاوَنُوۡا عَلَی الۡبِرِّ وَ التَّقۡوٰی ۪ وَ لَا تَعَاوَنُوۡا عَلَی الۡاِثۡمِ وَ الۡعُدۡوَانِ ۪ وَ اتَّقُوا اللّٰہَ ؕ اِنَّ اللّٰہَ شَدِیۡدُ الۡعِقَابِ ﴿۲﴾”
✍️আমরা আহলে সুন্নাত ও জামাত এর অনুসারী, আউলিয়ায়ে কিরামদের মানি ও হক্কানী পীরদের শ্রদ্ধা করি এবং তাঁদের মাজার শরীফ জিয়ারত করা কে মুস্তাহাব মনে করি।
এই কারণেই বহু সুন্নি মানুষ তাঁদের মাজার শরীফ জিয়ারত করতে যায়। মাজারে গিয়ে সাধারণ ব্যক্তিরা যে সমস্ত কাজ করেন, তন্মধ্যে একটি উল্লেখযোগ্য কাজ হল, মাজার শরীফে টাকা-পয়সা দান করা।
আজকে আমার আলোচনার বিষয় হল, মাজার শরীফে এই টাকা-পয়সা দান করা বৈধ কিনা? মাজারে কেউ যদি টাকা পয়সা দেয় তাহলে সে নেকি পাবে না গুনাহ?।
✴️বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করার পূর্বে আমাদের কে দেখতে হবে যে, যেসব টাকা আমরা মাজারে দেই, সেই টাকা গুলো কোথায় যায় এবং সেই টাকা গুলো কি কি কাজে ব্যবহার করা হয়?
আমার জানা মতে, এই টাকাগুলো বর্তমান সময়ে যে সমস্ত কাজে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তন্মধ্যে বেশিরভাগ কাজ ইসলামিক নয় বরং নিজের পরিবার-পরিজন চালানো এবং বিলাস বহুল জীবন যাপন করার জন্য যা প্রয়োজন তা এই টাকা দিয়েই মাজার কমিটি করে থাকেন।
আর এই কারণেই মাজার কমিটি অনেক সময় জোরজবস্তি মানুষের কাছে টাকা আদায় করে। এককথায় বলতে হলে বর্তমান সময়ে অধিকাংশ মাজার শরীফ গুলো ব্যবসা ও বিজনেসের কেন্দ্র হয়ে দাঁড়িয়েছে। মাজার গুলো নিয়ে বিভিন্ন মানুষ বিভিন্নভাবে বিজনেস করে যাচ্ছে। বহু জায়গায় মাজার কমিটি মাজারকে অকশনে (ডাকে) দিয়ে দেয়। যারা বেশি টাকা দিয়ে মাজার নিতে পারবে তাদেরকেই মাজার ব্যবসা ও বিজনেসের জন্য দেওয়া হয়। যে ব্যক্তিরা মাজার ক্রয় করে, তারা যদি ১০-লাখ টাকা দিয়ে মাজার দুই বছর অথবা এক বছরের জন্য নিয়ে থাকে তাহলে সেখানে ২০-লাখ টাকা কি করে ইনকাম হবে তা নিয়ে তাদের ভাবনা, চিন্তা ও চেষ্টা থাকে। আর এই জন্য হয়ে যায় মাজারগুলো টাকা ইনকামের একটি বড় মাধ্যম।
আর এসব কারণেই আমরা মাজার শরীফে বহু অবৈধ ও অইসলামিক কাজ করতে মানুষদের লক্ষ্য করি। কারণ, মাজার ব্যবসায়ী ব্যক্তিরা টাকা ইনকামের জন্য হালাল ও হারামের মধ্যে কোনো পার্থক্য করে না। এসব মাজারের বেশিরভাগ খাদেম মুখে দাড়ি রাখে না এবং নামাযের সময় হলে সঠিকভাবে নামাজও আদায় করেনা। আর না কাউকে অবৈধ কাজ করতে দেখে তাকে সেই কাজ থেকে বাধা দেয়। বহু জায়গায় এমনও দেখা যায় যে, গরীব লোকদের মাজারে প্রবেশ করতে দেয়া হয়না আর প্রবেশ করলেও তাদের তাড়াতাড়ি বের করে দেওয়া হয় অথচ যখন কোন ধনী ব্যক্তি, নেতা অথবা কোন নায়ক-নায়িকা সেখানে যায়, তার কাছ থেকে টাকা পাবার আশায় তাকে স্পেশাল ভাবে মাজার শরীফ জিয়ারত করার বন্দোবস্ত করা হয়।
এবং বহু জায়গা কমিটি ও গদ্দীনশীন ব্যক্তিরা মাজারকে অকশনে না দিয়ে সেখানে যা কিছু টাকা-পয়সা, চাদর, মুরগা মুরগি ইত্যাদি মানুষ দেয় সমস্ত জিনিস তারা নিজের ব্যবহারে নিয়ে আসে ও বিলাসবহুল জীবন যাপন করার জন্য যা কিছু প্রয়োজন যথা- বাড়ি, গাড়ি, ব্যাঙ্ক-ব্যালেন্স, টিভি, ফ্রিজ, মোবাইল, ল্যাপটপ ইত্যাদি সবকিছু সেই টাকা দিয়ে করে থাকে।
✴️মাজারগুলো বিজনেস ও ইনকামের একটি বড় মাধ্যম হওয়ার কারণেই বর্তমান সময়ে বহু মানুষ শুধু ইনকাম করার উদ্দেশ্যে নতুন ভুয়া ও ফোল্স মাজার তৈরি করে সেখান থেকে ইনকাম করে নিজের পরিবার-পরিজন চালায়।
✴️ শ্রদ্ধেয় পাঠক! খুবই কমসংখ্যক মাজার এমন পাওয়া যাবে যেখানকার টাকা কোন নেক কাজে ব্যবহার করা হয় যেমন মাদ্রাসা, মসজিদ, মুসাফিরখানা, এতিমখানা, লঙ্গরখানা ও দরিদ্র সীমার নিচে বসবাসকারী ব্যক্তিদের ফ্রি চিকিৎসার জন্য হসপিটাল ইত্যাদি নির্মাণ করে পরিচালিত করা।
✴️সুতরাং মাজার শরীফে টাকা দেওয়ার আগে ভালোভাবে চেক করে নিন যে, এই টাকাগুলো কোথায় যায়? যদি কোনো ইসলামিক কাজে আপনার টাকা ব্যবহার করা হয় তাহলে টাকা দিন, এক্ষেত্রে ইসলামিক ও নেকীর কাজে সাহায্য করার কারণে আপনিও নেকি পাবেন। আর যদি আপনার দেওয়া টাকা কোন অবৈধ ও নাজায়েজ কাজে ব্যবহার করা হয় অথবা মাজার ব্যবসায়ী ব্যক্তিদের হাতে চলে যায় তাহলে আপনি টাকা দিবেন না। কারন এক্ষেত্রে আপনার সেখানে টাকা দিয়ে গুনাহের কাজে সাহায্য করার কারণে আপনারও গুনাহ হবে। যেমন,
আল্লাহ তাআলা কোরআন শরীফে ইরশাদ করেন-
وَ تَعَاوَنُوۡا عَلَی الۡبِرِّ وَ التَّقۡوٰی ۪ وَ لَا تَعَاوَنُوۡا عَلَی الۡاِثۡمِ وَ الۡعُدۡوَانِ ۪ وَ اتَّقُوا اللّٰہَ ؕ اِنَّ اللّٰہَ شَدِیۡدُ الۡعِقَابِ ﴿۲﴾
অনুবাদ! এবং   সৎ ও  খোদাভীরুতার কাজে তোমরা  পরস্পরকে সাহায্য করো    আর    পাপ    ও    সীমালংঘণে     একে    অন্যের সাহায্য    করো     না    এবং    আল্লাহ্‌কে     ভয়    করতে থাকো নিশ্চয় আল্লাহ্‌র শাস্তি কঠোর।
সূরা মায়েদা আয়াত নং-2
তাছাড়া হাদিসের মধ্যে রয়েছে,
নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন-
اﻟﺪاﻝ ﻋﻠﻰ اﻟﺨﻴﺮ ﻛﻔﺎﻋﻠﻪ
অর্থাৎ নেক কাজে সাহায্যকারী নেক কাজ করার ন্যায় নেকির হকদার হবে।
{{মুজামে আওসাত তাবরানী হাদিস নং-2384,, মুসনাদে আহমদ হাদিস নং- 23027,, মুসনাদুল বাজ্জার হাদিস নং-7520,, সুনানে তিরমিজি হাদিস নং-2670,,
عن ﻋﺎﺋﺸﺔ ﻭاﺑﻦ ﻣﺴﻌﻮﺩ
اﻟﺪاﻝ ﻋﻠﻰ اﻟﺨﻴﺮ ﻛﻔﺎﻋﻠﻪ ﻭاﻟﺪاﻝ ﻋﻠﻰ اﻟﺸﺮ ﻛﻔﺎﻋﻠﻪ
অর্থাৎ! হযরত আয়েশা ও হযরত ইবনে মাসউদ রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহুমা হতে বর্ণিত। নেক কাজে সাহায্য কারী ব্যক্তি নেক কাজ করার ন্যায় নেকি পাবে‌। এবং অসৎ কাজে সাহায্য কারী ব্যক্তি অসৎ কাজ করার ন্যায় গুনাহের হকদার হবে।
{{ মুসনাদুল ফেরদৌস হাদিস নং-3121 }}
{{ ইহয়াউল উলূম খন্ড-4 পৃষ্ঠা-351 }}
সম্মানিত সুন্নি সমাজ! আমরা আউলিয়ায়ে কিরাম ও হক্কানী পীরাদের ভালোবাসি ও সম্মান করি। সুতরাং আমাদেরকে সেই সমস্ত কাজ থেকে বিরত থাকতে হবে, যে সমস্ত কাজের মাধ্যমে মানুষ আউলিয়া কেরামের উপর আংগুল তুলতে সাহায্য পায় অথবা মাজার শরিফ গুলোকে বদনাম করার সুযোগ পায়।
وما توفيقي الا بالله العلي العظيم و الصلاة والسلام على حبيبه الكريم صلى الله عليه وسلم
লেখক:-⁩⁦মুফতী আমজাদ হোসাইন সিমনানী
প্রেসিডেন্ট সুন্নি মিশন✍️⁩
পরিচালক:- সিমনানী রিসার্চ সেন্টার✍️
🌍 থানা- কুশমন্ডি, জেলা- দক্ষিন দিনাজপুর, রাজ্য- পশ্চিমবঙ্গ, ভারত🌍
      💞 অভিমত ও সমর্থন 💞
১)) হযরত আল্লামা মৌলানা মুফতি আশরাফ রেজা নাইমী রাজমহল ঝাড়খন্ড ভারত~
السلام علیکم
بے شک ٹھیک ہے ۔لیکن موجودہ کچھ پیر و مرید کے لیئے کڑوا ہو سکتا ہے
میں اپنی ذاتی طور پر اس معاملے میں آپ کا موید ہوں اور ہمیشہ کے لئے خیر خواہ
اللہ تعالی آپ کو بدنظری سے بچائے
آمین
মুফতি আশরাফ রেজা নাঈমী,
২)) আজিজ মিল্লাত মুফতি আব্দুল আজিজ কালিমি সাহেব, ইমাম:-পাঁচ তলা জামে-মসজিদ, কালিয়াচক, মালদা।
نحمده ونصلى على رسوله الكريم..
মাজার শরীফ বরকত লাভ করার একটা সুন্দর জায়গা কিন্তু কিছু নাম ধারি পীর এবং দুনিয়ার পাগল কিছু নাম ধারি খাদেম আসল উদ্দেশ্যকে বিকৃত করে দিয়েছে, যার কারণে সুন্নীয়াতকে বিভিন্ন প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। পরম ও চরম শ্রদ্ধাশীল ক্বোরআন ও হাদীসের পণ্ডিত,সত্য প্রচারে নির্ভীক হযরত মুফতী আমজাদ হুসাইন সিমনানী সাহেব – আসল মাসআলা এবং সময়ের অতি প্রয়োজনীয় বিষয় উপস্থাপন করেছেন তার জন্য আমার নেক দোয়া রইলো। পোস্টটি একদম সত্য। আমি 100% সহমত।
অন্ধভক্ত দূর করো
সততা-কে আঁখড়ে ধরো।

ইতি
আব্দুল আযীয কালিমী

নোট:- কোন মসআলা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হলে আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাতে পারেন আমাদের
SIMNANI RESEARCH CENTRE & HOLY-WAY TEAM

সমাজের পাশে দ্বীনের খেদমতের জন্য সব সময় আছে।*আমাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার জন্য-এই লিংকে ক্লিক করুন www.keyofislam.com

আমাদের Real Sunni TvHoly way ইউটিউব চ্যানেল গুলি কে  SUBSCRIBE করুন

আমাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

Leave a Reply

This Post Has 11 Comments

  1. Abdullah

    Jazaakallah khaira for uploading this important topic.

  2. Kaneez

    এধরনের আলোচনার সমাজে খুব দরকার রয়েছে। বর্তমান সময়ে অনেক মানুষ মাজার শরীফে গিয়ে টাকা দিয়ে থাকেন অথচ তারা কোনদিন ভাবেনা যে, এই টাকাগুলো কোথায় যায়?

  3. চালিয়ে যান শুভ বুদ্ধি সম্পন্ন ব্যক্তি আপনার সঙ্গে থাকবেhttps://youtuhttpbe/প

    মুফতী আমজাদ হোসেন সিমনানী সাহেবের প্রত্যেকটি গবেষণা এবং সমাজে জমে থাকা কু সংস্কারের বিরুদ্ধে অবিরত লড়াই কে১০০%সহমত পোষণ করি।

    1. Amjad husain simnani

      Jazaakallah khaira

      1. Humayun k

        সমস্ত পাঠকদের কাছে আবেদন যে, উপরোক্ত লেখনীটগ বেশি বেশি করে শেয়ার করবেন যাতে মানুষ সঠিক জ্ঞান অর্জন করতে সক্ষম হয় এবং মাজার শরীফে গিয়ে যে সমস্ত বর্জনীয় কর্মসমূহ তা পরিত্যাগ করে।

  4. Anonymous

    ما شاء الله

  5. Rakibul SK

    Jodi kono bekti gore namaz porle ekamat lagbe naki lagbena?

    1. Amjad husain simnani

      Barite foroz namaz adai korleo iqamot dite hobe

  6. Nure simna

    Important topic

  7. Anonymous

    Good information