সাহাবায়ে কেরাম কিভাবে মিলাদুন্নবী পালন করতেন?

সাহাবায়ে কেরাম কিভাবে মিলাদুন্নবী পালন করতেন?

নবী কারীম সাল্লাল্লাহু সালামের আগমন এর খুশি সাহাবায়ে কেরাম পালন করেছেন এবং সেই খুশিতে মাহফিল সাজিয়েছেন নিম্নোক্ত হাদিসের আলোকে যা স্পষ্টতই প্রতীয়মান হয়। 👇
عَنْ أَبِي سَعِيدٍ الْخُدْرِيِّ قَالَ: قَالَ مُعَاوِيَةُ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُ إِنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ خَرَجَ عَلَى حَلْقَةٍ- يَعْنِي مِنْ أَصْحَابِهِ- فَقَالَ: ((مَا أَجْلَسَكُمْ)). قَالُوا جَلَسْنَا نَدْعُو اللَّهَ وَنَحْمَدُهُ عَلَى مَا هَدَانَا لِدِينِهِ وَمَنَّ عَلَيْنَا بِكَ. قَالَ: ((آللَّهِ مَا أَجْلَسَكُمْ إِلاَّ ذَلِكَ)). قَالُوا آللَّهِ مَا أَجْلَسَنَا إِلاَّ ذَلِكَ. قَالَ: ((أَمَا إِنِّي لَمْ أَسْتَحْلِفْكُمْ تُهَمَةً لَكُمْ وَإِنَّمَا أَتَانِي جِبْرِيلُ عَلَيْهِ السَّلاَمُ فَأَخْبَرَنِي أَنَّ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ يُبَاهِي بِكُمُ الْمَلاَئِكَةَ)).
অর্থাৎ! হযরত আবু সাঈদ খুদরী রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, হযরত মুআবিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, একবার রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার সহাবাদের একটি (‘হালকা’) মহফিলের নিকটে গিয়ে বললেন, কিসে তোমাদের বসিয়েছে? (কিসের জন্য এই মাহফিল করা হয়েছে?) তারা বলল, আমরা মাহফিল করেছি আল্লাহর স্মরণ ও তার কৃতজ্ঞতা প্রকাশের জন্য। যেহেতু তিনি আমাদেরকে ইসলামের দিকে পথ দেখিয়েছেন এবং আমাদের মধ্যে আপনাকে প্রেরণ করে তিনি আমাদের প্রতি অনুগ্রহ ও ইহসান করেছেন। তিনি বললেন, আল্লাহর শপথ! তোমাদেরকে কি শুধু এ বিষয়েই বসিয়েছে? তারা বলল, আল্লাহর শপথ! আমাদেরকে একমাত্র ঐ বিষয় বসিয়েছে। তিনি বললেন, আমি তোমাদেরকে অপবাদ দেয়ার জন্যে শপথ করতে বলিনি; বরং আমার নিকট জিবরীল আলাইহিস সালাম এসে আমাকে অবহিত করেছেন যে, আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতা’আলা ফেরেশতাগণের নিকট তোমাদের মর্যাদা সম্পর্কে আলোচনা করছেন।
{{. সুনানে নাসাঈ হাদিস নং-5443 }
{{ মুসনাদে আহমদ হাদিস নং-16835 }}
{{ মু’জামে কারীর তাবরানী 19/311 }}
{{ শুয়াবুল ঈমান 2/70 }}
✴️উপরোক্ত হাদীস থেকে স্পষ্টতই বোঝা যায় যে, সাহাবায়ে কেরাম আল্লাহ তায়ালার শুকরিয়া ও কৃতজ্ঞতা পালন করার জন্য মাহফিল ও মজলিস অনুষ্ঠিত করেছেন ।‌ এবং নবী কারীম সাল্লাল্লাহু তায়ালা আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন তাদের কাছ থেকে সেই মাহফিল করার কারণ জানতে চেয়েছেন তখন তারা কারণ হিসাবে বলেছেন (هَدَانَا لِدِينِهِ وَمَنَّ عَلَيْنَا بِكَ) অর্থাৎ! যেহেতু আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে ইসলামের পথ দেখিয়েছেন এবং আমাদের প্রতি আপনাকে প্রেরণ করে অনুগ্রহ ও ইহসান করেছেন তাই আমরা এই মাহফিল ও মজলিস সাজিয়েছি। অতঃপর সেই মজলিসকে নবী কারীম সাল্লাল্লাহু ওয়া সাল্লাম নাজায়েজ ও গুনাহ বলেন নি বরং সেই মজলিসের প্রশংসা করে বলেন, এই মজলিসের প্রশংসা ও মর্যাদা স্বয়ং আল্লাহ তাআলা নিজ ফেরেশতাদের কাছে বয়ান করছেন। এবার প্রশ্ন হল, সাহাবীদের প্রতি আল্লাহ তাআলা কখন অনুগ্রহ করলেন? এর উত্তর আমরা কোরআন শরীফের মধ্যে খুঁজে পাই এই আয়াতের মাধ্যমে
لَقَدۡ مَنَّ اللّٰہُ عَلَی الۡمُؤۡمِنِیۡنَ اِذۡ بَعَثَ فِیۡہِمۡ رَسُوۡلًا مِّنۡ اَنۡفُسِہِمۡ یَتۡلُوۡا عَلَیۡہِمۡ اٰیٰتِہٖ وَ یُزَکِّیۡہِمۡ وَ یُعَلِّمُہُمُ الۡکِتٰبَ وَ الۡحِکۡمَۃَ ۚ وَ اِنۡ کَانُوۡا مِنۡ قَبۡلُ لَفِیۡ ضَلٰلٍ مُّبِیۡنٍ ﴿۱۶۴﴾
অনুবাদ 👉   নিশ্চয়    আল্লাহ্‌র    মহান    অনুগ্রহ    হয়েছে  মুসলমানদের   উপর   যে,   তাদের   মধ্যে   তাদেরই  মধ্য  থেকে  একজন  রসূল  প্রেরণ  করেছেন,  যিনি  তাদের উপর   তাঁর  আয়াতসমূহ  পাঠ করেন   এবং তাদেরকে পবিত্র করেন আর তাদেরকে কিতাব ও হিকমত শিক্ষা  দান করেন এবং   তারা  নিশ্চয় এর  পূর্বে স্পষ্ট গোমরাহীতে ছিলো।
{{ সূরা আল ইমরান আয়াত নং-164 }
✴️আর সহীহ মুসলিম-এর হাদিস থেকে প্রমাণ হয়, এই ধরনের মাহফিল সাহাবায়ে কেরাম রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম শুধু একবার করেননি বরং সাহাবী ও তাবেয়ীগণের পবিত্র যুগে বহুবার এধরনের মাহফিল করা হয়েছে। যা নিম্নোক্ত হাদিস থেকে স্পষ্ট প্রতীয়মান হয়,
«» حَدَّثَنَا أَبُو بَكْرِ بْنُ أَبِي شَيْبَةَ حَدَّثَنَا مَرْحُومُ بْنُ عَبْدِ الْعَزِيزِ عَنْ أَبِي نَعَامَةَ السَّعْدِيِّ عَنْ أَبِي عُثْمَانَ عَنْ أَبِي سَعِيدٍ الْخُدْرِيِّ قَالَ خَرَجَ مُعَاوِيَةُ عَلَى حَلْقَةٍ فِي الْمَسْجِدِ فَقَالَ مَا أَجْلَسَكُمْ قَالُوا جَلَسْنَا نَذْكُرُ اللَّهَ.
قَالَ آللَّهِ مَا أَجْلَسَكُمْ إِلاَّ ذَاكَ قَالُوا وَاللَّهِ مَا أَجْلَسَنَا إِلاَّ ذَاكَ. قَالَ أَمَا إِنِّي لَمْ أَسْتَحْلِفْكُمْ تُهْمَةً لَكُمْ وَمَا كَانَ أَحَدٌ بِمَنْزِلَتِي مِنْ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَقَلَّ عَنْهُ حَدِيثًا مِنِّي وَإِنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ خَرَجَ عَلَى حَلْقَةٍ مِنْ أَصْحَابِهِ فَقَالَ: ((مَا أَجْلَسَكُمْ)). قَالُوا جَلَسْنَا نَذْكُرُ اللَّهَ وَنَحْمَدُهُ عَلَى مَا هَدَانَا لِلإِسْلاَمِ وَمَنَّ بِهِ عَلَيْنَا. قَالَ: ((آللَّهِ مَا أَجْلَسَكُمْ إِلاَّ ذَاكَ)). قَالُوا وَاللَّهِ مَا أَجْلَسَنَا إِلاَّ ذَاكَ. قَالَ: ((أَمَا إِنِّي لَمْ أَسْتَحْلِفْكُمْ تُهْمَةً لَكُمْ وَلَكِنَّهُ أَتَانِي جِبْرِيلُ فَأَخْبَرَنِي أَنَّ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ يُبَاهِي بِكُمُ الْمَلاَئِكَةَ)).
অর্থাৎ! আবূ সাঈদ আল খুদরী রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, মু’আবিয়াহ্ রাদিয়াল্লাহু আনহু মাসজিদে একটি হালকা’র উদ্দেশে বের হলেন। অতঃপর তিনি বললেন, কিসে তোমাদেরকে এখানে বসিয়েছে (তোমরা এখানে বসেছ কেন)? তারা বলল, আমরা আল্লাহর যিকর করতে বসেছি। তিনি বললেন, আল্লাহর শপথ! এছাড়া আর কোন বিষয় তোমাদেরকে বসায়নি? (তোমরা কি শুধু এ জন্যেই বসেছ?) তারা বলল, আল্লাহর শপথ! এছাড়া অন্য কোন বিষয় আমাদেরকে বসায়নি। তিনি বললেন, আমি তোমাদেরকে অপবাদ দেয়ার উদ্দেশে শপথ প্রার্থনা করিনি। রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর দৃষ্টিতে আমার যে সম্মান ছিল সে অনুযায়ী আমার চেয়ে কম হাদীস বর্ণনাকারী কেউ নেই।
একবার রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার সহাবাদের একটি ‘হালকা’র নিকটে গিয়ে বললেন, কিসে তোমাদের বসিয়েছে? তারা বলল, আমরা বসেছি আল্লাহর স্মরণ ও তার কৃতজ্ঞতা প্রকাশের জন্য। যেহেতু তিনি আমাদেরকে ইসলামের দিকে পথ দেখিয়েছেন এবং আমাদের উপর তিনি নবী কারীম সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লামকে প্রেরণ করে ইহসান করেছেন। তিনি বললেন, আল্লাহর শপথ! তোমাদেরকে কি শুধু এ বিষয়েই বসিয়েছে? তারা বলল, আল্লাহর শপথ! আমাদেরকে একমাত্র ঐ বিষয় বসিয়েছে। তিনি বললেন, আমি তোমাদেরকে অপবাদ দেয়ার জন্যে শপথ করতে বলিনি; বরং আমার নিকট জিবরীল আলাইহিস সালাম এসে আমাকে অবহিত করেছেন যে, আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতা’আলা ফেরেশতাগণের নিকট তোমাদের মর্যাদা সম্পর্কে আলোচনা করছেন।
{{ সহীহ মুসলিম হাদিস নং-7032 }}
✴️সম্মানিত মুসলিম সমাজ! উপরোক্ত হাদিসদ্বয় ও কোরআন শরীফের আয়াত থেকে স্পষ্ট প্রতীয়মান হল যে, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু সালামের আগমন ও প্রেরণ এর খুশিতে আল্লাহ তাআলার নিকট শুকরিয়া ও কৃতজ্ঞতা পালনের উদ্দেশ্যে মাহফিল ও মজলিশ করা সাহাবায়ে কেরামের সুন্নত।
✴️ তাছাড়া যেকোন ইসলামী মাহফিলে আল্লাহু তাআলার জিকির করা ও নবী করীম সাল্লাল্লাহু সাল্লাম এর প্রতি দরুদ ও সালাম পেশ করা মুসলিম সম্প্রদায়ের কর্তব্য। যদি কোন মাহফিল সাজিয়ে সেখানে আল্লাহ তাআলার জিকির এবং নবী কারীম সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর প্রতি দরুদ শরীফ পাঠ না করা হয় তাহলে সেই মাহফিল জাহান্নামে যাওয়ার কারণ হতে পারে। যা নিম্নোক্ত হাদিস থেকে স্পষ্ট প্রতীয়মান হয়।
عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُ عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: ((مَا جَلَسَ قَوْمٌ مَجْلِسًا لَمْ يَذْكُرُوا اللَّهَ فِيهِ وَلَمْ يُصَلُّوا عَلَى نَبِيِّهِمْ إِلاَّ كَانَ عَلَيْهِمْ تِرَةً فَإِنْ شَاءَ عَذَّبَهُمْ وَإِنْ شَاءَ غَفَرَ لَهُمْ)).
قَالَ أَبُو عِيسَى: هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ صَحِيحٌ. وَمَعْنَى قَوْلِهِ تِرَةً يَعْنِي حَسْرَةً وَنَدَامَةً. وَقَالَ بَعْضُ أَهْلِ الْمَعْرِفَةِ بِالْعَرَبِيَّةِ التِّرَةُ هُوَ النَّارُ.
অর্থাৎ! আবূ হুরাইরাহ রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত আছে। নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেনঃ যে সমস্ত লোক কোন মজলিস ও মাহফিলে বসেছে অথচ তারা আল্লাহ তা’আলার যিকর করেনি এবং তাদের নাবীর প্রতি দরূদও পড়েনি, তারা বিপদগ্রস্ত ও আশাহত হবে। আল্লাহ তা’আলা চাইলে তাদেরকে শাস্তিও দিতে পারেন কিংবা মাফও করতে পারেন।
(আবূ ঈসা বলেন, হাদীসটি হাসান ও সহীহ।)
তিরাতুন অর্থঃ আক্ষেপ, আফসোস। কোন কোন আরবী ভাষায় পারদর্শীগণ বলেছেন, এর অর্থ আগুন।
{{ সুনানে তিরমিযী হাদিস নং-3708 }}
💫وما توفيقي الا بالله العلي العظيم و الصلاة والسلام على حبيبه الكريم صلى الله عليه وسلم💫
✍️মুফতী আমজাদ হুসাইন সিমনানী, পরিচালক:- সিমনানী রিসার্চ সেন্টার✍️
💥 থানা- কুশমন্ডি, জেলা- দক্ষিন দিনাজপুর, রাজ্য- পশ্চিমবঙ্গ, ভারত 💥
নোট:- কোন মসআলা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হলে আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাতে পারেন আমাদের
SIMNANI RESEARCH CENTRE & HOLY-WAY TEAM

সমাজের পাশে দ্বীনের খেদমতের জন্য সব সময় আছে।*আমাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার জন্য-এই লিংকে ক্লিক করুন www.keyofislam.com

আমাদের Real Sunni TvHoly way ইউটিউব চ্যানেল গুলি কে  SUBSCRIBE করুন

আমাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

Leave a Reply

This Post Has 8 Comments

  1. Abdullah

    Informative message to all muslims.

  2. Kaneez

    Good one

  3. Amjad husain

    Jazaakallah khaira for uploading this post

  4. Anonymous

    ما شاء الله

  5. Noor Alam qadri

    Nice post

  6. Noor Alam qadri

    Go ahead bro

  7. M moshtak

    Nice 👍